রাষ্ট্রপতির কাছে এক আইনজীবীর জরুরি অবস্থা জারির আবেদন

0
212

রাষ্ট্রপতির নিকট সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী দেশে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ও জনগণের জীবন রক্ষায় জরুরি অবস্থা জারির জন্য আবেদন পাঠিয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) বিকালে ই-মেইল যোগে এ আবেদন পাঠিয়েছেন ন্যাশনাল লইয়ার্স কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এস এম জুলফিকার আলী জুনু।

আবেদনে বলা হয়, দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এরইমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছে হাজার হাজার মানুষ। এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশ হিমশিম খাচ্ছে উল্লেখ করে জানান, করোনার সংক্রমণ থেকে দেশের মানুষকে রক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, স্পেন, কানাডা ও বেলজিয়ামে জাতীয় এবং আঞ্চলিক পর্যায়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল। দেশগুলো করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে অনেকাংশেই সফল হয় জরুরি অবস্থা পালনের ফলে। তাই অনেক উন্নত দেশে এখন লকডাউনের প্রয়োজনীয়তা থাকছে না। স্বাভাবিক জীবন অতিবাহিত করছে সেসব দেশের মানুষ।

এতে আরও জানানো হয়, করোনার সংক্রমণ থেকে দেশবাসীকে রক্ষার অনেক চেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। এর ফলে সরকারের পুনঃপুন লকডাউন দিতে হচ্ছে। অথচ দিন দিন করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির সাথে মৃত্যু হারও বাড়ছে। এত আয়োজন করলেও লকডাউন পালনে দেশের অনেক মানুষের মাঝে উদাসীনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কোনোভাবেই নিম্নমুখী করা যাচ্ছে না করোনার ভয়াবহ সংক্রমণ ও মৃত্যুহার।

এছাড়াও বলা হয়, দেশের অর্থনীতির মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে পোশাক খাতের ক্রয় আদেশ বিদেশি ক্রেতারা বাতিল করার ফলে। সংবিধানের ১৪১ (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী এই পরিস্থিতিতে , রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমতাবলে আসন্ন বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে ১২০ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হলে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে বলে আবেদনে জানানো হয়।

তথ্য গোপন করে করোনা আক্রান্তরা অনেকেই জনসম্মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে তাই কোনভাবেই কোয়ারেন্টাইন ও আইসোলেশনে বাধ্য করা যাচ্ছে না। অন্যদিকে সরকার বিদেশ ফেরতদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিলেও অনেকেই নিয়ম না মেনে জনসম্মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন এই আইনজীবী।

পূর্ববর্তী নিবন্ধফের ডেঙ্গু আতঙ্ক : ২৪ ঘণ্টায় ১৪৩ রোগী ভর্তি
পরবর্তী নিবন্ধগণধর্ষণের পর  হত্যাকাণ্ড, আদালতে প্রধান আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে