জিজ্ঞাসাবাদে র‍্যাবকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানালেন ইভ্যালির রাসেল

0
152

র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়েছেন দেশের আলোচিত ই-কমার্স ইভ্যালির এমডি ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ রাসেল। জিজ্ঞাসাবাদ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তার ব্যবসার উদ্দেশ্য কী ছিল তা জানিয়েছে র‌্যাব। 

র‌্যাব জানায়, নতুন গ্রাহকেদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পুরানো গ্রাহকদের অল্প পণ্য ফেরত দিয়ে ব্যবসা করাই ছিল তার উদ্দেশ্য। ইভ্যালি শুরু থেকেই একটি লোকসানি কোম্পানি। সিইও রাসেল গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে সাভারে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন নিজের নামে। শেষ দিকে ইভ্যালির কর্মচারীদের ঠিকমতো বেতনও দিতে পারতেন না তিনি।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যকে এই তথ্য জানান র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক হিসেবে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি জানান, ব্যবসায়িক বিক্রি বাড়াতে গ্রাহকদের প্রতিনিয়ত চাহিদা তৈরি হয় এ ধরনের পণ্যকে বেছে নেয় ইভ্যালি। যেমন- মোবাইল, টিভি, ফ্রিজ, এসি, মোটরবাইক, গাড়ি, গৃহস্থলীপণ্য, প্রসাধনী, প্যাকেজ ট্যুর, হোটেল বুকিং, জুয়েলারি, স্বাস্থ্যসেবা সামগ্রী ও ফার্নিচার ইত্যাদি। এসব পণ্যের মূল্য ছাড়ের ফলে ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠানের বিশাল আকারে সায় (লায়াবেলিটিস) তৈরি হয়।

ব্রিফিংয়ে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তার রাসেল ও তার স্ত্রীর ব্যবসায়িক অপকৌশল ছিল নতুন গ্রাহকের ওপর দায় চাপিয়ে দিয়ে পুরাতন গ্রাহক ও সরবরাহকারীর দায়ের (লায়াবেলিটিস) অল্প অল্প করে পরিশোধ করা। অর্থাৎ ‘সায় ট্রান্সফার‘ এর মাধ্যমে দুরভিসন্ধিমূলক অপকৌশল চালিয়ে যাচ্ছিল ইভ্যালি। প্রতিষ্ঠানটির নেওয়ার্কে যত গ্রাহক তৈরি হত, দায় (লায়াবেলিটিস) তত বাড়ত। গ্রেপ্তার রাসেল জেনেশুনে এ নেতিবাচক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন।

খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি আমাদের হাজার কোটি টাকার দেনার কথা জানান। ইভ্যালির দায় ও দেনা সম্পর্কে নানা প্রতিবেদনে জানা গেছে, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ইভ্যালির দায় ছিল ৪০৩ কোটি টাকা, যেখানে তাদের সম্পদ ছিল ৬৫ কোটি টাকা। বিভিন্ন সংস্থার এসব প্রতিবেদনের বিষয়ে গ্রেপ্তারকৃত রাসেল আমাদের কোনো সদুত্তর দিতে পারেন নাই।’

উল্লেখ্য, গতকাল বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মোহাম্মদপুরের নিজ বাসা থেকে ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

পূর্ববর্তী নিবন্ধকোটি টাকার যানবাহন নষ্ট হচ্ছে মামলার কবলে
পরবর্তী নিবন্ধরাসেল শামীমার রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে